মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০২:৩৩ অপরাহ্ন

খলনায়ক শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৬ বার

চলচ্চিত্রের প্রাণ যদি হয়ে থাকেন নায়ক-নায়িকা, তবে ভিলেন বা খলনায়ক হচ্ছেন সেই প্রাণের স্পন্দন। কারণ খলনায়ক না থাকলে নায়কের নায়ক হয়ে ওঠা যে হয় না! তাই চলচ্চিত্রে ভালো মানুষদের জয়জয়কার হয়ই মন্দ মানুষরা গল্পে থাকেন বলে। ফলে চলচ্চিত্র ইতিহাস ঘেঁটে পাওয়া যায় গোলাম মোস্তফা, খলিল, এটিএম শামসুজ্জামান, রাজীব, হুমায়ূন ফরীদি, সাদেক বাচ্চু, অমল বোস, আহমেদ শরীফ, মিজু আহমেদ, জাম্বু, নাসির খান, কাবিলা, ইলিয়াস কোবরা, ডিপজল, ডন, মিশা সওদাগরের মতো খলনায়কদের দুর্দান্ত জনপ্রিয়তার প্রমাণ।

শুধু পুরুষই নয়, নারী খল-অভিনেত্রী হিসেবে রওশন জামিল, রিনা খান ঢাকাই ছবিতে উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম। মন্দ চরিত্রের এসব অভিনয়শিল্পী দর্শক বসিয়ে রাখতেন শেষ পরিণতি দেখার জন্য। তবে আফসোসের বিষয় হলো, একে একে আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে যাচ্ছেন এসব গুণী শিল্পী। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, এত এত খলনায়কের মধ্যে কেবল একজনই নিয়মিত কাজ করছেন। অনেকে পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। অনেকে নিজেকে পর্দায় এনেছেন ভিন্ন আমেজে।

ষাটের দশকেই খল চরিত্রে নিজেকে মেলে ধরেছিলেন বরেণ্য অভিনেতা গোলাম মুস্তাফা। তার ভরাট কণ্ঠের সংলাপ ভয় জাগিয়েছে দর্শকদের মনে। যদিও চরিত্রাভিনেতা হিসেবেও তিনি সমানভাবে সাফল্য কুড়িয়েছেন। তবে ঢাকাই চলচ্চিত্রের খলনায়কদের তালিকা করলে তার নামটি চলে আসে প্রথম দিকেই। ২০০৩ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুবরণ করেছিলেন তিনি। তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের পাশাপাশি এই অভিনেতা অর্জন করেন সম্মানজনক একুশে পদকও।

দর্শকদের কাছে জসিম জনপ্রিয় এখনো নায়ক হিসেবে। তবে তার শুরুটা হয়েছিল খলনায়কের ভূমিকায়। আর সে চরিত্রে তিনি ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করেছেন। সুঠাম দেহের ভিলেন হিসেবে তার অভিনয় সমৃদ্ধ করেছে খল চরিত্রের ইতিহাসকে। এর পর নায়করূপে কাজ করলেও জসিমের খলনায়কের ভূমিকা এখনো স্মরণীয় হয়ে আছে। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে অ্যাকশনের পথপ্রদর্শক হিসেবে খ্যাত এই অভিনেতা মৃত্যুবরণ করেন ১৯৯৮ সালের ৮ অক্টোবর।

খলনায়কের চরিত্রে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন রাজীব। চলচ্চিত্রের পর্দায় তার হিংস্রতা, নায়কের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সংলাপ আর দুর্দান্ত অভিনয়ের সুবাদে তিনি নিজেকে দেশের অন্যতম গুণী অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। অসংখ্য কালজয়ী ও দর্শকনন্দিত ছবির ভিলেন রাজীব। অনবদ্য অভিনয়ের সুবাদে জিতেছিলেন চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে মাত্র ৫২ বছর বয়সেই তিনি না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। তার মৃত্যু হয়েছিল ২০০৪ সালের ১৪ নভেম্বর।

ব্যতিক্রম ধাঁচে সংলাপ বলে জনপ্রিয় হয়েছিলেন মিজু আহমেদ। দীর্ঘ অভিনয়জীবনে তিনি খলনায়ক চরিত্রেই বেশি অভিনয় করেছেন। এ ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য পেয়েছেন জাতীয় স্বীকৃতিও। বছর তিনেক আগে দিনাজপুরে শুটিং করতে যাওয়ার পথে ট্রেনের মধ্যেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন মিজু আহমেদ। তার পর আর ফিরলেন না। ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে ছুড়লেন না নতুন কোনো সংলাপ। ২০১৭ সালের ২৭ মার্চ তারিখটি তার চলে যাওয়ার দিন। ভয়ঙ্কর চেহারার ভিলেন হিসেবে ঢালিউডে পরিচিতি ছিল জাম্বুর। আসল নাম বাবুল গোমেজ। কিন্তু দর্শকদের কাছে তিনি জাম্বু নামে দারুণ জনপ্রিয় ছিলেন। আশি ও নব্বইয়ের দশকের বহু ছবিতে তার খল চরিত্রের অভিনয় দর্শকদের বিনোদিত করেছে। ২০০৪ সালের ৩ মে জাম্বু জীবনের মায়া ত্যাগ করে চলে যান না ফেরার দেশে।

দেশের অভিনয় জগতের অন্যতম কিংবদন্তি হুমায়ুন ফরীদি। সব চরিত্রেই তিনি সমান পটু ছিলেন। তবে ঢাকাই চলচ্চিত্রের পর্দায় তার খল অভিনয় এখনো দাগ কেটে আছে দর্শকদের মনে। তার দ্রুতলয়ে উচ্চারিত সংলাপ আর চোখ-মুখের ব্যতিক্রম সব কারুকার্য আলাদাভাবে পরিচিতি পেয়েছিল। চলচ্চিত্র অঙ্গনে অসামান্য দ্যুতি ছড়ানো এই অভিনেতার প্রস্থান হয় ২০১২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি। মৃত্যুর ছয় বছর পর তাকে ভূষিত করা হয় একুশে পদকে। অবশ্য জীবদ্দশায় তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছিলেন।

ঢালিউডের খলনায়কদের মধ্যে সর্বশেষ না ফেরার দেশে গেছেন সাদেক বাচ্চু। গত ১৪ সেপ্টেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনিও সিনে ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন নায়ক হিসেবে। তবে সাফল্যের দেখা পেয়েছেন খলনায়কের ভূমিকায়। ২০১৮ সালে তিনি খল চরিত্রে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন।

খলনায়ক হিসেবে সফল তিনজন অভিনেতা এখনো জীবিত আছেন। তারা হলেন কিংবদন্তি এটিএম শামসুজ্জামান, ডিপজল ও মিশা সওদাগর। তবে অনেক বছর আগেই এটিএম শামসুজ্জামান ও ডিপজল খল চরিত্রে অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন। চলচ্চিত্রেও আর সেভাবে দেখা যায় না তাদের। এটিএম শামসুজ্জামান মাঝেমধ্যে ছোটপর্দায় কাজ করেন। আর ডিপজল কালেভদ্রে সিনেমায় কাজ করলেও ইতিবাচক কিংবা নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেন।

তাই দেশের চলচ্চিত্রে খলনায়ক হিসেবে এখন কেবল অবশিষ্ট আছেন মিশা সওদাগর। ভিলেনরূপে তিনিই সর্বশেষ জনপ্রিয় ও সফল অভিনেতা। তার পর আর কেউ সর্বজনপ্রিয় খলনায়ক হয়ে উঠতে পারেননি। খলনায়ক হিসেবে মিশার ওপর নির্ভর করেই প্রায় ১০ বছর ধরে তৈরি হয়েছে ছবি। তার পরের কোনো উত্তরসূরি তৈরি হয়নি। কালেভদ্রে অমিত হাসান, ওমর সানীরা ভিলেন হয়ে কেবল চলচ্চিত্রের তালিকাই লম্বা করেছেন। কিন্তু বলার মতো সাফল্য বা অভিনয় কোথাও মেলেনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com