শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০১:১১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
মানবতাবিরোধী অপরাধ একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড তৃতীয়বারের মতো কন্যা সন্তানের মা হলেন ন্যান্সি করোনা মহামারী শেষ হয়নি, বরং পরিবর্তিত হচ্ছে : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অন্য ছেলেকে বিয়ে, সাতদিনের মাথায় ‘প্রেমিকের’ হাতে খুন হলেন দিতি পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে শীর্ষে বাবর, রিজওয়ান, আফ্রিদি স্কুলের এক ছাত্রীর কাছে ‌‘হিরো সাজতেই’ শিক্ষককে পেটায় জিতু : র‌্যাব অর্থ আত্মসাতের মামলায় নর্থ সাউথের ৪ ট্রাস্টির জামিন নাকচ দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর ঢাকা অবশেষে পদ্মা সেতুতে সেই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার আসল কারণ জানা গেল ফাঁস হলো আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ জার্সি

বরিশালে মা ইলিশ শিকারের মহোৎসব

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৮৭ বার

বরিশালের মুলাদী উপজেলায় চলছে মা ইলিশ শিকারের মহোৎসব। গত ১৪ অক্টোবর মা ইলিশ রক্ষার জন্য অভিযান শুরু হলেও প্রশাসন দায়সারাভাবে অভিযান পরিচালনা করে আসছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

মুলাদী উপজেলায় জয়ন্তী, নয়াভাংগুলী ও আড়িয়াল খাঁ নদীতে মীরগঞ্জ, মিয়ারচর, পাইতিখোলা, বানিমর্দন, নাজিরপুর, রামচর, সফিপুর, চরমালিয়া, মৃধার হাট এলাকায় রাত ৩টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত ও বিকাল ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত শত শত জেলে মা ইলিশ নিধন করে চলছে। এই নদীগুলোতে বেশ কিছু খাল থাকায় প্রশাসনের লোকজন টহল দিতে গেলে জেলেরা খালের ভেতর লুকিয়ে পড়ে। অভিযানকারীদের ট্রলার চলে গেলে আবার নেমে পড়েন মাছ শিকারে।

মুলাদী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও নির্বাহী কর্মকর্তা ছয়টি ট্রলার, একটি স্পিড বোট ও নৌ পুলিশ ফাঁড়ির দুইটি পুলিশ বোট নদীতে অভিযান পরিচালনার কথা থাকলেও অভিযান পরিচালনায় গাফলতি দেখা যাচ্ছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। নিয়ম ভেঙ্গে অনেক জেলে মাছ শিকার করলেও এ পর্যন্ত মাত্র ১৩ জনকে আটক করা হয়েছে। তার মধ্যে নিয়মিত মামলায় ছয়জন, পাঁচজনকে সাজা ও দুইজনের জরিমানা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মৎস্য কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমাদের জনবল খুব কম। তার মধ্যে আমি ১০১ থেকে ১০২ ডিগ্রী জ্বর নিয়ে অভিযান পরিচালনা করছি। উপজেলার বিভিন্ন দফতর থেকে সাত থেকে আটজন কর্মকর্তা অভিযান পরিচালনার জন্য দেয়া হয়েছে। তারা ডিউটি সময় ভাগ অভিযান পরিচালনা করে থাকেন।

স্থানীয় সচেতন মহলের ধারণা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা একটু সচেতন হয়ে কাজ করলে অনেকটা কমে আসবে মা ইলিশ শিকার। কিন্তু আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হওয়ায় চেয়ারম্যান ও মেম্বারগণ ভোট হারানোর ভয়ে তেমন সহযোগিতা করছে না বলে কর্মকর্তাদের অভিযোগ।

এলাকার জনসাধারণ বলছে, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সঠিকভাবে সকাল-সন্ধ্যায় অভিযান পরিচালনা না করলে মা ইলিশ রক্ষা করা যাবে না।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শুভ্রা দাস জানান, নির্ধারিত অভিযান পরিচালনা করার টিম থাকার পরেও দুই থেকে এক দিন পর পর আমি নিজে ও সহকারী কমিশনার ভূমি আলাদাভাবে অভিযান পরিচালনা করে থাকি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com