শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১১:৩৪ অপরাহ্ন

পরিবারের জন্য লেখাপড়া ছেড়েছে ২৮ ভাগ তরুণ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২ নভেম্বর, ২০২০
  • ১১০ বার

করোনা মহামারীর কারণে শিক্ষা ও কর্মসংস্থানে বিপুলসংখ্যক তরুণ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছেন। আর্থিক দুর্বিপাকে পড়া পরিবারকে সহায়তা করতে এরইমধ্যে তাদের ২৮ শতাংশ পড়াশোনা ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। আয় কমে গেছে ৮০ শতাংশের। আয়ের ক্ষেত্রে উল্টো চিত্রও রয়েছে। এই সংকটেও ১২ শতাংশের আয় বেড়েছে।

গতকাল রবিবার ‘কোভিড-১৯ ও বাংলাদেশ : আর্থসামাজিক পুনরুজ্জীবনে যুব এজেন্ডা’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সংলাপে এ তথ্য তুলে ধরে বেসরকারি সংগঠন ‘এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ’। সংগঠনটি ১৮-২৭ অক্টোবর পর্যন্ত ১ হাজার ১৬৩ জনের ওপর অনলাইনে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে এই জরিপ পরিচালনা করে। ১৮৩০ বছর বয়সী অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৮৬৩ জন পুরুষ, ২৯৯ নারী এবং একজন তৃতীয় লিঙ্গের। অতিমারীর কারণে প্রযুক্তিগত বৈষম্য, শিক্ষা ও দক্ষতা এবং কর্মসংস্থানের চ্যালেঞ্জ তুলে ধরে বলা হয়, নারীদের মধ্যে ৮ শতাংশ বিয়ের কারণে পড়াশোনা ছেড়েছে আর পরিবারকে সহায়তার জন্য ছেড়েছে ১৩ শতাংশ। পুরুষদের মধ্যে এটি ৩২ শতাংশ।

দুই-তৃতীয়াংশ তরুণ ভবিষ্যৎ কর্মজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে। কোভিডে তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে। ৯৬ শতাংশ জানিয়েছে- তারা নানা ধরনের মানসিক অবসাদে ভুগছে। এর মধ্যে ৫৯ শতাংশের অবসাদ বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। অনলাইনে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণে যুক্ত নেই ৫৮ দশমিক ৩ শতাংশ।

অনুষ্ঠানের সহআয়োজক ছিল জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) বাংলাদেশ, অ্যাকশনএইড বাংলাদেশ, ফ্রেডরিক ইবার্ট স্টিফটুং বাংলাদেশ, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, ওয়াটার এইড বাংলাদেশ এবং সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)। জরিপ প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন সিপিডির কর্মসূচি সহযোগী তামারা-ই-তাবাসসুম।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, ধারণা করা যাচ্ছে করোনাকালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, পলিটেকনিক, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ১০ থেকে ১৫ শতাংশের পড়াশোনা ছেড়ে দেওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক ও সিপিডির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, যুবসমাজের একটি অংশ শিক্ষা, প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন তৎপরতায় সক্রিয় রয়েছে। অপর একটি অংশ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। কেউ মাদকে যুক্ত, কেউ অবসাদে ভুগছেন।

সমাপনী বক্তব্যে সংগঠনের কোর গ্রুপের সদস্য এবং সিপিডির বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, করোনাকালে শহর ও গ্রামের মধ্যে এবং নারী-পুরুষ-তৃতীয় লিঙ্গের মধ্যে ত্রিমাত্রিক লিঙ্গবৈষম্য দেখা দিয়েছে। এই বৈষম্যগুলো শনাক্ত করে বাজারের চাহিদার সঙ্গে দক্ষতার সমন্বয় কীভাবে করা যায়, তা নিয়ে ভাবতে হবে। অনুষ্ঠানে উঠে আসা আলোচনার একটি সারসংক্ষেপ করে সরকারের নীতিনির্ধারক পর্যায়ে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সিপিডির জ্যেষ্ঠ রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com