বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৮:১১ অপরাহ্ন

যে স্বপ্ন দেখেছিলেন ৫০ বছর আগেই

সাজেদ ফাতেমী
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ১১৫ বার

১৯৭০ সালে ছেলেটির শাশুড়ি তাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন- বাবা, তুমি ভবিষ্যতে কী হতে চাও? তোমার স্বপ্ন কী? তখন তিনি বলেছিলেন- ‘আমি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হতে চাই।’ সেই ছেলেটির স্বপ্ন আজ পূরণ হতে চলেছে। তিনি ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হওয়ার পথে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন।

বিষয়টি কারও কাছে কাকতালীয় মনে হতে পারে। কিন্তু আমি তা মনে করছি না। আমি বরং এটাই ভাবছি- স্বপ্ন দেখা এবং তা পূরণের লক্ষ্য স্থির রেখে সামনে এগিয়ে গেলে সে স্বপ্ন পূরণ হবেই। জো বাইডেন নতুন করে তা পৃথিবীকে দেখিয়ে দিলেন।

প্রতি চার বছর পরপর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয়। সে হিসাবে এবার নভেম্বরের প্রথম সোমবারের পর যে মঙ্গলবার পড়ে, অর্থাৎ গত ৩ নভেম্বর দেশটিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত মার্কিন গণমাধ্যমের খবর বলছে, বেশিরভাগ অঙ্গরাজ্যেই দুই প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে গেছে। এএফপি বলছে, নেভাদার ছয়টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট পেলেই হোয়াইট হাউসে প্রবেশের টিকিট পাবেন বাইডেন।

মার্কিন নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে এর ফলাফল নিয়ে সারা পৃথিবীতেই ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয়। কিন্তু এ নির্বাচনের প্রক্রিয়াটা ঠিক কীভাবে কাজ করে, তা অনেকেই পুরোপুরি বুঝতে পারেন না। এ দেশটির রাজনীতি অন্য অনেক দেশের চেয়ে আলাদা। এখানে মাত্র দুটি রাজনৈতিক দল প্রভাব বিস্তার করে। একটি রিপাবলিকান পার্টি, যা একটি রক্ষণশীল রাজনৈতিক দল। এটি ‘গ্র্যান্ড ওল্ড পার্টি’ নামে পরিচিত। অন্যটি ডেমোক্র্যাটিক পার্টি। যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে এ পার্টি উদারনৈতিক রাজনৈতিক দল হিসেবে পরিচিত। প্রায় সব সময়ই এ দুটি দলের কোনো একটি থেকেই দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। অবশ্য ছোট কিছু রাজনৈতিক দল আছে, যারা মাঝে মাঝে প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী মনোনয়ন দেয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বিশ্বের একজন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রভাবশালী ব্যক্তি। যুদ্ধ, মহামারী বা জলবায়ু পরিবর্তনের মতো কোনো আন্তর্জাতিক সংকটের সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট কী ভূমিকা রাখছেন, তার প্রভাব অপরিসীম।

অন্য অনেক দেশের নির্বাচনে দেখা যায়, যে প্রার্থী বেশি ভোট পান, তিনিই প্রেসিডেন্ট হন। কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সবসময় তা না-ও হতে পারে। কারণ, তাদের নির্বাচন পদ্ধতিকে বলা যায় ‘পরোক্ষ’ ভোট ব্যবস্থা- যা অনেকের কাছেই জটিল লাগে। এখানে একজন ভোটার যখন তার পছন্দের প্রেসিডেন্ট প্রার্থীকে ভোট দিচ্ছেন, তখন তিনি আসলে ভোট দিচ্ছেন তার অঙ্গরাজ্যভিত্তিক নির্বাচনী লড়াইয়ে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হতে হলে প্রার্থীকে আসলে দুই ধরনের ভোটে জিততে হয়। একটি হচ্ছে ‘পপুলার’ ভোট বা সাধারণ ভোটারদের ভোট। আরেকটি হচ্ছে ‘ইলেক্টোরাল কলেজ’ নামে এক ধরনের নির্বাচকমণ্ডলীর ভোট। নির্বাচনের প্রার্থীরা আসলে এ ইলেক্টোরাল ভোট জেতার জন্যই লড়াই করেন। এ ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটের সংখ্যা নির্ধারণ করা হয় যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্যগুলোর জনসংখ্যার ভিত্তিতে। যে অঙ্গরাজ্যে জনসংখ্যা বেশি, সেখানে ইলেক্টোরাল ভোটের সংখ্যাও বেশি। মোট ইলেক্টোরাল ভোট ৫৩৮টি। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হতে গেলে একজন প্রার্থীকে অন্তত ২৭০টি ইলেক্টোরাল ভোট পেতে হবে। একেকটি অঙ্গরাজ্যের ইলেক্টোরাল কলেজ সেই রাজ্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটারদের রায় অনুযায়ী ভোট দিয়ে থাকে। একটি রাজ্যে যে প্রার্থী সবচেয়ে বেশি পপুলার ভোট পান, তিনি ওই রাজ্যের সব ইলেক্টোরাল ভোট পেয়ে যান। এভাবে একেকটি রাজ্যের ইলেক্টোরাল ভোট যোগ হতে হতে যে প্রার্থী ২৭০-এর বেশি ভোট পান, তিনিই হন পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেই হিসেবে সাদা চোখে আমরা জো বাইডেনের বিজয় দেখতে পাচ্ছি।

যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ রাজ্যই চিরাচরিতভাবে ‘রিপাবলিকান’ বা ‘ডেমোক্র্যাট’ বলে চিহ্নিত হয়ে গেছে। তাই প্রার্থীরা প্রচারণার সময় এমন ১০-১২টি রাজ্যের দিকে মনোযোগ দিয়ে থাকেন- যেগুলো ঠিক নির্দিষ্ট কোনো দলের সমর্থক হিসেবে পরিচিত নয় এবং সেখানে যেকোনো দলই জিতে যেতে পারে। এগুলোকে বলে ‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ স্টেট অর্থাৎ আমেরিকান প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আসল লড়াই হয় এ রাজ্যগুলোতেই।

সাধারণভাবে দেখা যায়, আমেরিকার অপেক্ষাকৃত গ্রামীণ এলাকাগুলোয় রিপাবলিকান পার্টির সমর্থক বেশি। রিপাবলিকান পার্টি থেকে এর আগে নির্বাচিত প্রেসিডেন্টদের মধ্যে আছেন জর্জ ডব্লিউ বুশ, রোনাল্ড রিগ্যান ও রিচার্ড নিক্সন। আর ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সমর্থন বেশি শহরাঞ্চলগুলোয়। এ পার্টি থেকে নির্বাচিত পূর্ববর্তী প্রেসিডেন্টদের মধ্যে আছেন জনএফ কেনেডি, বিল ক্লিনটন ও বারাক ওবামা।

এবার নির্বাচনের আগে এবং নির্বাচনের দিনে সব জনমত জরিপই জো বাইডেনের বিপুল বিজয়ের আভাস দিয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যমও ছিল ট্রাম্পের বিপক্ষে। কিন্তু সবই গরল ভেল হল। বিপুল বিজয় দূরের কথা, হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করেই ট্রাম্পকে পরাস্ত করতে হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে ক্ষমতার পরিপূর্ণ স্বাদ পেতে বাইডেনকে ভীষণ বেগ পেতে হবে, কারণ প্রায় অর্ধেক নাগরিকের প্রতিনিধিত্ব করছেন ট্রাম্প।

সাজেদ ফাতেমী : জনসংযোগ পরিচালক, ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com