বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ১০:৩৪ অপরাহ্ন

ফাইজারের টিকা দেওয়া শুরু আগামী সপ্তাহে

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩ জুন, ২০২১
  • ২০ বার

বাংলাদেশে আসা ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকার প্রয়োগ আগামী সপ্তাহের শেষ থেকে শুরুর পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গতকাল বুধবার সংবাদ বুলেটিনে অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম জানান, আগে থেকেই যারা নিবন্ধন করেছেন তাদের এ টিকা দেওয়া হবে।

এর আগে গত সোমবার রাতে ন্যায্যতার ভিত্তিতে বিশ্বে টিকা বিতরণে বৈশ্বিক জোট কোভ্যাক্স থেকে ফাইজার-বায়োএনটেকের ১ লাখ ৬২০ ডোজ টিকা ঢাকায় পৌঁছায়। এটি দেশে পৌঁছানো তৃতীয় কোম্পানির টিকা। এর আগে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনকার কোভিশিল্ড এবং চীনের সিনোফার্মের টিকা দেশে প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

ডা. নাজমুল জানান, অতি শীতল তাপমাত্রায় রাখা হয় বলে ফাইজারের টিকা দেওয়ার আগে ‘সক্রিয় টিকায়’ রূপান্তর করতে ডাইলুয়েটের প্রয়োজন হয়। কোভ্যাক্স থেকে আগামী ৭ জুন বাংলাদেশে এই ডাইলুয়েটর এসে পৌঁছানোর কথা রয়েছে। এর পর বাকি আনুষ্ঠানিকতা শেষে আমরা আশা করছি আগামী ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে এ টিকা প্রয়োগ শুরু হবে। যেহেতু এই টিকার পরিমাণ অনেক কম, এ কারণে ইতোমধ্যে যারা সুরক্ষা অ্যাপের মাধ্যমে নিবন্ধন করেছেন তাদের মধ্য থেকেই দেওয়া হবে।

ফাইজারের টিকা দেওয়ার সেন্টার এখনো চূড়ান্ত হয়নি জানিয়ে ডা. নাজমুল বলেন, টিকাদান কেন্দ্রের জন্য অনেকগুলো হাসপাতাল বিবেচনায় আছে। চূড়ান্ত বিবেচনায় টিকা যেখানে রাখা হয়েছে, সেখান থেকে কেন্দ্রের দূরত্ব, সেখানকার লোকবল এবং অন্যান্য বিষয় বিবেচনা করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান জৈবপ্রযুক্তি কোম্পানি বায়োএনটেকের তৈরি ফাইজারের টিকা গত বছরের ২ ডিসেম্বর বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্য জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দেয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর তাদের জরুরি ব্যবহার্য টিকার তালিকায় ফাইজারের টিকাকে অন্তর্ভুক্ত করে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড বা সিনোফার্মের তৈরি টিকার মতোই ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকাও নিতে হবে দুই ডোজ করে। প্রথম ডোজ দেওয়ার ৩ থেকে ৪ সপ্তাহ পর দিতে হবে দ্বিতীয় ডোজ। ১২ বছর বা তার বেশি বয়সীদের ওপর ফাইজারের টিকা প্রয়োগ করা যাবে। চূড়ান্ত ধাপের ট্রায়ালে এ টিকা ৯৫ শতাংশ কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে বলে উৎপাদকদের ভাষ্য।

পরীক্ষামূলক প্রয়োগে তুলনামূলকভাবে বেশি কার্যকারিতা দেখালেও ফাইজারের টিকা সংরক্ষণ ও সরবরাহের কাজটি কোভিশিল্ডের মতো সহজ নয়। কোভিশিল্ড যেখানে সাধারণ রেফ্রিজারেটরে ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা সম্ভব, সেখানে ফাইজারের টিকা মাইনাস ৯০ থেকে মাইনাস ৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে সংরক্ষণ করতে হবে। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর জানিয়েছে, এ টিকা ২ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় পাঁচ দিন রাখা যাবে। রেফ্রিজারেটরের বাইরে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এ টিকা দুই ঘণ্টা ভালো থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com