মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৭:১৭ অপরাহ্ন

অর্থ বুঝে কুরআন পড়াই কুরআনের দাবি

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩৯ বার

এতে কোনো সন্দেহ নেই যে- কেউ যদি অর্থ না বুঝেও কুরআন তেলাওয়াত করে, তার বিনিময়ে আল্লাহতায়ালা তাকে সওয়াব দান করবেন।

আল্লাহর রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি কুরআনের একটি হরফ পড়বে, সে একটি নেকি পাবে, আর প্রতিটি নেকি দশ গুণ করে বৃদ্ধি করে দেওয়া হবে। আমি বলি না যে, আলিফ-লাম-মিম মিলে একটি হরফ; বরং আলিফ একটি হরফ, লাম একটি হরফ, এবং মিম আরেকটি হরফ।’ (তিরমিজি, হাদিস ২৯১০)

তবে এই হাদিসের মর্ম এই নয়— অর্থ না বুঝে  কুরআন পড়ার ওপর স্থির হয়ে বসে থাকতে হবে অথবা অর্থ বোঝার চেষ্টাপ্রচেষ্টা করা লাগবে না। কুরআন যেহেতু আল্লাহর পয়গাম, প্রত্যেক বান্দার জন্য ফরজ হচ্ছে পয়গামকে বুঝে কার্যত বাস্তবায়ন করা।

কুরআন শিক্ষার প্রথম ধাপে অথবা যার জন্য অর্থ বুঝে পড়া সম্ভব নয়, তার জন্য হতে পারে অন্তত আল্লাহর কালামের নুরানিয়াত ও রুহানিয়াত উপলব্ধির জন্য হলেও না বুঝে পাঠ করা।

মানুষ যেন কোনো আপত্তিতে কুরআন থেকে দূরে না সরে যায়, এই জন্য প্রথম ধাপে না বুঝে হলেও তাকে কুরআন পড়তে হবে। কিন্তু কেবল কুরআন তেলাওয়াত শিখেই বসে থাকলে চলবে না, বরং তাকে আল্লাহর নির্দেশিত পন্থায় বুঝে কুরআন পাঠ করাও জরুরি। কেননা অর্থ বুঝে কুরআন পড়াই কোরআনের দাবি।

আল্লাহ পাক নিজেই তার কিতাবে বলেন: এটি একটি অত্যন্ত বরকতময় কিতাব, যা আমি তোমার ওপর নাজিল করেছি, যাতে এরা তার আয়াত সম্পর্কে চিন্তা-ফিকির করে এবং জ্ঞানী ও চিন্তাশীলরা তা থেকে শিক্ষা নেয়। (সুরা সোয়াদ : আয়াত ২৯)

তারা কি কুরআন সম্পর্কে চিন্তাভাবনা করে না? (সুরা নিসা : আয়াত ৮২)

আমি এ কুরআনকে উপদেশ লাভের সহজ উৎস বানিয়ে দিয়েছি। তো উপদেশ গ্রহণকারী কেউ আছে কি? (সুরা কমার: আয়াত ১৭)

হে লোকসকল! আমি তোমাদের প্রতি এমন একটি কিতাব অবতীর্ণ করেছি যার মধ্যে তোমাদেরই কথা আছে, তোমরা কি তারপরও বুঝো না? (সুরা আম্বিয়া : আয়াত ১০)

এভাবে আমি বিশদভাবে আয়াতের বর্ণনা করে থাকি তাদের জন্য যারা চিন্তাভাবনা করে। (সুরা ইউনুস: আয়াত ২৪)

আর আমি মানুষদের বোঝানোর জন্যে এ কুরআনে সব ধরনের উদাহরণই পেশ করেছি।  (সুরা রূম: আয়াত ৫৮)

আর এ কুরআনকে আমি অল্প অল্প করে নাজিল করেছি, যাতে করে তুমি যথাসময়ে তা লোকদেরকে পড়ে শোনাও এবং (এই কারণেই) তাকে পর্যায়ক্রমে নাজিল করেছি। (সুরা বনি ইসরাইল : আয়াত ১০৬)

তুমি এ কাহিনি তাদেরকে শোনাতে থাকো, হয়তো তারা কিছু চিন্তা-ফিকির করবে। (সুরা আ’রাফ: আয়াত ১৭৬)

এসব আয়াত প্রমাণ করে কুরআন কেবল সওয়াব অর্জনের মাধ্যম নয়, বরং তা পাঠ করে বোঝে-সমঝে কার্যত বাস্তবায়ন করাই কুরআন পাঠের মূল উদ্দেশ্য হওয়া উচিৎ।

এই আয়াতগুলো উল্লেখ করে মাওলানা ওবায়দুল্লাহ সিন্ধি বলেন, আল্লাহর ভাষ্য থেকে আমরা কুরআন পাঠের তিনটি দিকনির্দেশনা পাই-

(এক) কুরআন মনোযোগ সহকারে ও ধীরেধীরে পড়তে হবে। এবং তা নিয়ে চিন্তা-ফিকির ও প্রায়োগিক গবেষণা করতে হবে।

(দুই) যা পড়বে, সেই অনুযায়ী কাজ করতে হবে। কেননা মানুষকে সৃষ্টিই করা হয়েছে উত্তম কাজের জন্যে।

(তিন) কুরআনি শিক্ষা ব্যক্তিজীবনে প্রয়োগের ক্ষেত্রে আল্লাহর রাসুলের (সা.) জীবন ও কর্ম অনুসরণ করতে হবে। কোনো শিক্ষা বাস্তবায়ন তখনই খুব সহজ হয় যখন তার কোনো বাস্তব নমুনা থাকে। এর ফলে বিভিন্ন লোকের মতের বিভিন্নতার কারণে অনৈক্য হয় না, এবং বাড়াবাড়ি ও ছাড়াছাড়ি থেকে নিরাপদ থাকা যায়। কুরআনে আল্লাহ কুরআন শিক্ষার যে নিয়ম বর্ণনা করেছেন, আল্লাহর রাসুলও (সা.) সেই নিয়ম অনুসরণ করেছেন এবং কামিয়াব হয়েছেন।

আল্লাহর রাসুল (সা.) কুরআনের প্রত্যেকটি আয়াত নিয়ে চিন্তা-ফিকির করতেন। একই আয়াত বারবার বারবার পড়তেন। এমনও হয়েছে, একটি আয়াত পড়ছেন তো পড়ছেন, রাত পার হয়ে সকাল হয়ে গেছে।

ইমাম ইবন কাইয়িম তার ‘যাদুল মাআদ’ কিতাবে লিখেন— ‘আল্লাহর রাসুল (সা.) খুব থেমে থেমে সুরা পড়তেন। এমনকি একটি ছোট সুরা পড়তে দীর্ঘ সুরার চেয়ে বেশি সময় লাগাতেন। কখনো কখনো একটি আয়াত বারবার পড়তে পড়তে সকাল বানিয়ে ফেলতেন।’

হজরত ইবন মাসউদ (রা.) বলেন, ‘কুরআন আস্তে আস্তে ও চিন্তা-ফিকির করে পড়া, যদিও অল্প পড়া হয় তবু দ্রুত পড়ার চেয়ে উত্তম। কেননা কুরআন পড়ার উদ্দেশ্য তা বোঝা ও কার্যত বাস্তবায়নের চিন্তাভাবনা করা— ওই পড়া ও মুখস্তকরণ যেন অর্থোদ্ধার পর্যন্ত পৌঁছায়। এই জন্যই আমাদের কতক মুরুব্বি বলেন, কুরআন নাজিল হয়েছে কুরআন কার্যত বাস্তবায়নের জন্য, কিন্তু লোকজন কুরআন তেলাওয়াতকে আমল বানিয়ে নিয়েছে।

আমাদের অগ্রসূরীদের মধ্যে ‘কুরআনওয়ালা’ তাদের বলা হতো যারা কুরআন সম্পর্কে জ্ঞান রাখতেন, একই সঙ্গে তা কার্যত বাস্তবায়ন করতেন। যদিও তাদের কারো কারো কুরআন মুখস্ত ছিল না।

যে লোকের কুরআন মুখস্ত আছে কিন্তু সে তার অর্থ বুঝে না এবং কার্যত বাস্তবায়নের উপায়ও জানে না, সে ‘কুরআনওয়ালা’ নয়, যদিও প্রত্যেকটা হরফ সম্পর্কে তার জ্ঞান সোজা তীরের মতো ঠিকঠাক হয়।

সাধারণ তেলাওয়াত, যেখানে কুরআন বোঝা ও চিন্তা-ফিকির করার বিষয়টি অনুপস্থিত থাকে, এমন তেলাওয়াত তো ভালো খারাপ মুমিন মোনাফেক— যে কেউ করতে পারে। আল্লাহর রসুল (স) একারণেই বলেন, যে মোনাফেক কুরআন তেলাওয়াত করে তার উদাহরণ ‘রায়হান’ (নামক) সুগন্ধির মতো, তার ঘ্রাণ খুব সুন্দর কিন্তু স্বাদ তিতকুটে।’ (কুরআন পড়ার মূলনীতি, প্রথম অধ্যায়, পৃষ্ঠা ৩৩)

একইরকম বক্তব্য হিকমতে কোরআন ইনস্টিটিউটের প্রধান হজরত আবুল ফজল নুর আহমদ সিন্ধিও দেন। তিনি জোরালো কণ্ঠে বলেন, কুরআন না বোঝার ফলে এই বিশ্বজগত সৃষ্টির মূল উদ্দেশ্যের প্রতিফলন আমাদের চালচলনে পড়ে না।

কুরআনে বারবার বিশ্বজগত ও মানব জাতিকে সৃষ্টির উদ্দেশ্য সবিস্তারে বর্ণনা করা হয়েছে। কুরআন না বোঝার কারণে মানুষ যে আল্লাহর খলিফা, এই জমিনে যে তাকে খলিফার দায়িত্ব আঞ্জাম দেওয়ার জন্য পাঠানো হয়েছে, এসব ধারণা তার চিন্তাভাবনার কেন্দ্র হতে পারে না।

ফলে আমাদের এই ধর্ম একটি পরিপূর্ণ জীবনবিধান হওয়ার বদলে হিন্দুমত, খ্রিষ্টমত ও বুদ্ধমতের কেবল কিছু আধ্যাত্মিক নিয়মকানুনে পরিণত হয়েছে। আমরা ইসলামকে জীবনের সামগ্রিক ক্ষেত্রে না এনে অন্য ধর্মের মতো কেবল কিছু নিয়মসর্বস্ব ইবাদত মনে করি।
‘সকল ধর্মের ওপর শ্রেষ্ঠ’ হওয়ার জন্য পবিত্র কুরআন আমাদের যে পথ ও পদ্ধতি বাৎলিয়েছে, আমরা সেটা ভাবতেও ভীরুতার শিকার হই, কেননা সেই পথ বড় কঠিন ও কুরবানির দাবি রাখে। এরপর আমরা ‘কম খরচে ধর্ম’ পালন করে ‘ধার্মিক’ দাবি নিয়ে নিজের স্বার্থসিদ্ধি আদায়ে উঠেপড়ে লাগি।

ওই সময় আমরা ধর্মের মূলমন্ত্র ও হেকমতের তাগাদা কী— তা জানারও চেষ্টা করি না। আমরা দুর্বোধ্য মন্ত্রবাক্যের মতো কুরআনের শব্দের হাফেজ হয়ে, তারপর কিছু ইবাদত ও রুসুম-রেওয়াজ অনুসরণ করে নিজেদের কেবল দীনদার নই, দীনের ঠিকাদার ভেবে বসি। এবং উদ্দেশ্যহীন কিছু ইবাদত করেই আমরা আল্লাহর নির্দেশিত ইবাদত বা আল্লাহকে পাওয়ার জন্য ইবাদতের দাবিদার হয়ে যাই।

আমরা প্রত্যেকদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করি, দিনে পঞ্চাশ বারের বেশি সুরা ফাতিহা তেলাওয়াত করি। সুরা ফাতিহা যেমন আমাদের জন্য দোয়া, তেমনই আল্লাহর পক্ষ ওয়াদা পূরণের ঘোষণাও। আবার আমাদের কাজের পথ ও গতি বাছাইয়ের মাধ্যমও বটে। কিন্তু আমাদের কয়জনের মনে ‘আল হামদু লিল্লাহি রব্বিল আলামিন’ বলার সময় ‘রব কাকে বলে’ এই প্রশ্ন জাগে? অথবা রবের চিন্তা আমাদের মনোজগতে ভেসে ওঠে কী?

রবুবিইয়াত কাকে বলে অথবা রবুবিইয়াতকে ধারণ করতে দুনিয়ায় আমাদের কোন পথ ও পদ্ধতি গ্রহণ করতে হবে? ‘আলামিন’ অর্থ সমস্ত জগত, তো এই ‘আলামিন’ বলে কী উদ্দেশ্য?

রবুবিইয়াতের সম্পর্ক যেহেতু আলামিনের সাথে, মানে আল্লাহ তাআলা যেহেতু সমস্ত জগতের প্রভু, তো এই ‘সমস্ত জগত’ কতগুলো জগতের সমষ্টি? কতজন লোক ‘আর রহমানির রহিম’ বলার সময় আল্লাহর গুণাবলি কল্পলোকে উপলব্ধি করে এবং কার্যত বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সেই গুণাবলিকে রাহবার মানে?

নামাজে কি কেউ আল্লাহর দরবারে সৃষ্টির প্রতি তার অনুগ্রহ ও দয়ার রিপোর্ট পেশ করে? ‘মালিকি ইয়াওমিদ্দিন’ তেলাওয়াতের সময় কয়জন নিজের আমলের হিসাব করে বিচার দিবসের মালিকের সামনে উপস্থাপন করে?

কেবল আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগির দাবিদার তার দাবির ভিত্তিতে সেই পবিত্র সত্তার কাছে কী কী সাহায্য চায় এবং কোন কোন মহান উদ্দেশ্য পূরণের মদদ প্রার্থনা করে? যখন তার কাছে ‘সরল সঠিক পূণ্যপন্থা’ বলে দেওয়ার আবদার করে, তখন কাকে সে আদর্শ মানে, ‘আইডিয়াল’ কে থাকে?

যদি হজরত আবু বকর বা ওমর (রা.) তার আইডিয়াল হয়, তাহলে সেই মহামানবদের জীবনাদর্শের কতটুকু তারা নিজ জীবনে প্রতিফলিত করে— এই প্রশ্ন আসে।

‘গইরিল মাগদুবি আলাইহিম ওলাদ দ-ল্লিন’ বলার সময় কয়জন লোক এই জমানার ‘অভিশপ্ত’ ও ‘পথভ্রষ্ট’ দল থেকে নিজেকে বাঁচানোর কাজ করে? পবিত্র কোরআন যখন হক ও বাতিলকে আলাদা করার পর হকের বিজয় ও বাতিলের বিনাশের ঘোষণা দিয়েছে, তখন এই কিতাবের অনুসরণকারী প্রত্যেককে এই নির্দেশনা দেয় যে, তার যুগের ‘অভিশপ্ত’ ও ‘পথভ্রষ্টদের’ চিহ্নিত করে তাদের বিপরীতে সরল সঠিক পূণ্যপন্থায় একনিষ্ঠভাবে চলতে হবে।

যদি কুরআন পড়ার সময় পাঠকারীর মনে এসব আমল কার্যত বাস্তবায়নের স্পৃহা না জাগে, তাহলে একথাই প্রমাণিত হয় যে তার কোরআন পাঠ যথাযথভাবে হচ্ছে না, সে একদিকে কোরআন তেলাওয়াত করে অন্যদিকে কুরআনবিরোধী কাজ অনায়াসে করার যোগ্যতা রাখে। (নাউজু বিল্লাহ)

মোদ্দাকথা হলো কুরআন বুঝে পড়া জরুরি। কোরআন না বুঝে পড়লেও সওয়াব হবে— এই বক্তব্য একথা প্রমাণ করে না যে সারা জীবন না বুঝে পড়তে হবে। বরং কুরআন বুঝে পড়া ও কুরআনের ওপর চিন্তাভাবনা করা স্বয়ং আল্লাহ পাকের নির্দেশ, এই নির্দেশ বিশেষ কারও জন্য নয়, প্রত্যেক বান্দার জন্য।

সুরা জুমুআর ২ নং আয়াতে আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন: তিনিই মহান সত্তা যিনি নিরক্ষরদের মধ্যে তাদেরই একজনকে রাসুল করে পাঠিয়েছেন, যিনি তাদেরকে তার আয়াত পাঠ করে শোনান, তাদের জীবনকে সজ্জিত ও সুন্দর করে এবং তাদেরকে কিতাব ও হেকমত শিক্ষা দেন। অথচ ইতোপূর্বে তারা স্পষ্ট গোমরাহিতে নিমজ্জিত ছিল।

এই আয়াত থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে নিরক্ষরতা ও গোমরাহিতে নিমজ্জিত জাতিকেও কুরআনের শিক্ষা দেওয়া ও তাদের জীবন সজ্জিত করা নবীওয়ালা কাজ।

আর এই নবীওয়ালা কাজের দায়িত্ব যেহেতু উম্মতের প্রত্যেক সদস্যের ওপর, তাই আমাদের প্রত্যেকেরই কুরআন বুঝে পড়া উচিৎ। এবং যতক্ষণ না কুরআন বুঝে পড়ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত কুরআন অন্তরে প্রভাব ফেলবে না।

আল্লাহ আমাদের কুরআন বুঝে পড়ার দান তাওফিক করুন। আমিন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com