মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

প্রাথমিকে ৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ জানতে উদগ্রীব ১৩ লাখ প্রার্থী

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২২
  • ২৯ বার

প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ নিয়ে আবার নাটকীয়তা শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে দুই দফায় তারিখ ঘোষণা করা হলেও শেষ পর্যন্ত দু’টি তারিখই পরিবর্তিত হয়েছে। এবার নতুন সম্ভাব্য তারিখ আগামী ২২ এপ্রিল ঘোষণা করা হলেও চূড়ান্ত ঘোষণা দিচ্ছে না প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই)। ফলে পরীক্ষায় অংশ নিতে আগ্রহী ১৩ লাখ প্রার্থী এখনো রয়েছেন অনিশ্চয়তায়। তারা জানে না কবে বা কয় দফায় এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষায় অংশ নিতে ১৩ লাখ প্রার্থী চূড়ান্ত তারিখ জানতে উদগ্রীব হয়ে আছেন।

এ দিকে গত ৩০ মার্চ দেশের ৬১টি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের নিয়ে জুম মিটিংয়ে প্রাথমিকভাবে সবাই আগামী ২২ এপ্রিল প্রথম দফায় শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা নেয়ার বিষয়ে মতামত দিয়েছেন। ওই দিনের সভায় তারা এটাও বলেছেন যে, এবারের নিয়োগ পরীক্ষা নেয়া দরকার দুই দফায়। যদিও এর আগে বেশির ভাগ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এই পরীক্ষা ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে নেয়ার কথা বলেছেন। কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য ইশারায় অতি প্রতিযোগিতাপূর্ণ এই নিয়োগ পরীক্ষাটি কেন্দ্রীয়ভাবে না নিয়ে জেলা পর্যায়ে নেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করছে। যদিও শুরু থেকেই রাজনৈতিকভাবে প্রভাব বিস্তার করে জেলা পর্যায়ে এই পরীক্ষার নিয়ে যাওয়ার জন্য নানাভাবে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। শেষ পর্যন্ত তারা নানা কৌশলে সফলতাও পাচ্ছে।

প্রশ্ন উঠেছে নিয়োগ পরীক্ষাটি পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করার কথা ডিপিইকে। কিন্তু পরীক্ষার তারিখ নিয়েই ডিপিই কোনো কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারছে না। প্রথম দিকে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয় পয়লা এপ্রিল থেকে চার ধাপে কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় নেয়া হবে এই পরীক্ষা। কিন্তু সেই তারিখও আর ঠিক থাকেনি। পরে ঘোষণা হয় এই পরীক্ষা শুরু হবে ৮ এপ্রিল থেকে। কিন্তু দ্বিতায় দফায় ঘোষণা করা এই তারিখও ঠিক রাখতে পারেনি ডিপিই। প্রশ্ন উঠেছে বাইরের কোন ইশারা বা ইঙ্গিতে বারবার এভাবে পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন হচ্ছে? একই সাথে আরো প্রশ্ন উঠেছে কেনইবা পরীক্ষার ভেনু পরিবর্তন করা হচ্ছে।

যদিও প্রাথমিকভাবে জানা গেছে যে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা আগামী ২২ এপ্রিল আয়োজনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এবার দুই ধাপে এই পরীক্ষা আয়োজন করা হতে পারে। আগামী সপ্তাহে পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হতে পারে।
গতকাল শনিবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান তুহিন জানান, ২২ এপ্রিল থেকে পরীক্ষা শুরু করতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের পক্ষ থেকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের মৌখিকভাবে বলা হয়েছে। কেন্দ্রের তালিকা নির্ধারণ এবং কোন কেন্দ্রে কতজন পরীক্ষা দিতে পারবে সে বিষয়ে জানাতে বলা হয়েছে। কর্মকর্তারা এ সংক্রান্ত তথ্য প্রেরণ করার পর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হতে পারে।

অন্য দিকে ডিপিই সূত্র জানায়, প্রাথমিকভাবে এবারের নিয়োগ পরীক্ষা জেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হলেও পরীক্ষা কয়ধাপে অনুষ্ঠিত হবে সেটা এখনি বলা মুশকিল। তবে প্রাথমিকভাবে দুই ধাপে পরীক্ষা নেয়া হতে পারে। প্রথম ধাপের পরীক্ষার ২২ এপ্রিল নেয়ার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ২৫ অক্টোবর প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার অনলাইনে আবেদন শুরু হয়। শুরুতে পদসংখ্যা ৩২ হাজার বলা হলেও পরে সেটি বাড়িয়ে ৪৫ হাজার করা হয়েছে। প্রাথমিকের ইতিহাসে এটিই সবচেয়ে বড় নিয়োগ।

সূত্র আরো জানায়, সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার জন্য আবেদন করেছেন ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬১ জন প্রার্থী। সবচেয়ে বেশি আবেদন পড়েছে ঢাকা বিভাগে। এই বিভাগের ২ লাখ ৪০ হাজার ৬১৯ জন আবেদন করেছেন। এরপর রাজশাহীতে ২ লাখ ১০ হাজার ৪৩০, খুলনায় ১ লাখ ৭৮ হাজার ৮০৩, ময়মনসিংহে ১ লাখ ১২ হাজার ২৫৬, চট্টগ্রামে ১ লাখ ৯৯ হাজার ২৩৬, বরিশালে ১ লাখ ৯ হাজার ৩৪৪, সিলেটে ৬২ হাজার ৬০৭ এবং রংপুর বিভাগে ১ লাখ ৯৬ হাজার ১৬৬টি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com