শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪৩ অপরাহ্ন

সিটি নির্বাচনেও ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি চলছে : রিজভী

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৬৬ বার

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের আসন্ন নির্বাচনে ভোট ডাকাতির আশঙ্কা প্রকাশ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ইতিমধ্যে দেশবাসী দেখেছে চট্টগ্রাম-৮ আসনে উপ-নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট ডাকাতি উৎসব। চট্টগ্রামে ডিজিটাল ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি ম্যাচ সম্পন্ন করেছে অবৈধ হাসিনার সরকার। আওয়ামী সন্ত্রাসী এবং সরকারের পেটোয়া বাহিনী সবগুলো ভোটকেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দিয়ে নিঃশব্দে, নিভৃতে এবং নীরবে ইভিএমে ভোট ডাকাতি করেছে। এবার ৩০ জানুয়ারি চূড়ান্ত ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি চলছে ঢাকার দুই সিটিতে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, সহ-দফতর সম্পাদক মোঃ মুনির হোসেন, মৎস্যজীবী দলের আব্দুর রহিম প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে রিজভী বলেন, ইভিএম দিয়ে ডিজিটাল ভোট ডাকাতির মহড়া হলো গত ১৩ জানুয়ারি চট্টগ্রাম-৮ আসনের শূন্য আসন এবং হাইমচরের উপজেলা নির্বাচন ভোটে। যা ছিল প্রস্তুতি ম্যাচ। সেখানে প্রমাণিত হয়েছে ভোটার ছাড়াই ইভিএমে নৌকার প্রার্থীদের কিভাবে পাশ করানো সহজ। গত ২৯ ডিসেম্বরে মিডনাইট ইলেকশনের পর গোটা বিশ্বের নিন্দা ও ধিক্কারের ঝড় সামলাতে না পেরে এই অবৈধ গণবিচ্ছিন্ন সরকার দেশের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ, বিদ্ব্যৎজন, নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সংস্থা এবং সরকারী দল ছাড়া প্রায় সব রাজনৈতিক দলগুলোর আপত্তি থোড়াই কেয়ার করে ইভিএম মেশিন দিয়ে ভোট ডাকাতির কৌশল নিয়েছে। তারা জানে, এখন কোনো নির্বাচনের আগে রাতে ভোট দেয়া শুরু করলে আর কেউ না হোক সাংবাদিকরা সেখানে উপস্থিত হয়ে যাবেন। অতএব এবার তাদের আরেকটি নতুন পন্থা উদ্ভাবন করতে হয়েছে। সেটা হলো এই ইভিএম।
এটাই বিস্ময়কর। স্বার্থলোভী ভেকধারী ক্ষমতাসীনরা হঠাৎ ইভিএমকে সুষ্ঠু ভোটের মেশিন বলে অভিহিত করছেন কেনো? যারা ভোটের আগের দিন রাতে পুলিশ-র‌্যাব দিয়ে ভোটের বাক্স পূর্ণ করে, যারা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে নোমিনেশন ফরম জমা দিতে দেয় না, যারা কেন্দ্র দখল করে ভোটারদেরকে ভোট প্রদানে বাধা দেয় এবং এজেন্টদের বের করে দেয়, যারা ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোটার ছাড়া গরু-ছাগলের বিচরণ নিশ্চিত করেছে, যারা ভোটের নামে শুধু নিজেদেরকেই বিজয়ী ঘোষণা করে, যারা নির্বাচনের প্রসাধনী মুখে মেখে ভোটারদের ভোট লুট করে, যারা তাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণার ওপর আক্রমণ করে মাইক ভেঙ্গে ফেলে ও পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলে, যারা একতরফা নির্বাচন করার জন্য তাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের মৃত মানুষ থেকে শুরু করে জীবিত লক্ষ লক্ষ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দেয় ও গ্রেফতার করে, তারা কি কোনো মহৎ উদ্দেশ্যে ইভিএম চালু করছে? এটি হলো মধ্যরাতের নির্বাচনের মতো ভোট ডাকাতির আরেকটি কৌশল। এটা হলো ভেল্কিবাজির মেশিন। ইভিএম হলো মহাপ্রতারণার নতুন পদ্ধতি। এতে ডিজিটাল ডাকাতির পর অভিযোগ করারও সুযোগ নেই। মামলার সুযোগ নেই, একজন ভোটার কোথায় ভোট দিলেন জানারও সুযোগ নেই। তাহলে এর চেয়ে ভোট চুরির বড় মাধ্যম আর কী হতে পারে?

তিনি বলেন, কার্যত ইভিএমে সুষ্ঠু ভোটের ন্যুনতম সুযোগ নেই। ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনও চট্টগ্রামের মতো দখলের নীলনকশার প্রস্তুতি কি না তা নিয়ে জনমনে সংশয় দেখা দিয়েছে। ঢাকাতেও সন্ত্রাসী কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রচারণার সময়ে গ্রেফতার অভিযান করবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। এখন গ্রেফতার চলছে, অভিযানও চলছে, আক্রমণ চলছে, হামলা চলছে এবং হামলার মাধ্যমে একটা ভয়ভীতির পরিবেশ তারা সৃষ্টি করেছে। প্রতিনিয়ত নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করছে সরকারি দলের প্রার্থীরা। ধানের শীষের পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলছে সন্ত্রাসী। বেছে বেছে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাও নিয়োগ দেয়া হয়েছে ছাত্রলীগের ক্যাডারদের। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য হিসাবে দায়িত্বে থাকবে সরকারের আস্থাভাজন চিহ্নিতরা।

রিজভী বলেন, চট্টগ্রাম উপ-নির্বাচনে ইভিএমে ভোট গ্রহণে অনিয়ম, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া, কেন্দ্র দখল, ধানের শীষের সমর্থকদের ওপর হামলা হলেও আজ্ঞাবহ নির্লজ্জ নির্বাচন কমিশন ভোট স্থগিত করেনি। মাত্র ৫ শতাংশ ভোট পড়লেও দেখানো হয়েছে ২২ শতাংশ ভোট হয়েছে। ভোট শুরুর পর থেকে ১৭০টির সব কয়টি কেন্দ্রের দখল ছিল স্বৈরাচার শেখ হাসিনার সন্ত্রাসী বাহিনীর। বরং সুষ্ঠু ভোটের পক্ষে সাফাই গেয়েছে ভোট ডাকাতির সহযোগী নির্বাচন কমিশন। সরকারের চরম সুবিধাভোগী দালাল সিইসি কে এম নুরুল হুদা সুষ্ঠু নির্বাচনের সজ্ঞায় যেন ভুলে গেছেন।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম উপ-নির্বাচন ও হাইমচরে ভোট শুরুর কিছুক্ষণ পরেই পুলিশের উপস্থিতিতে নৌকার লোকজন ইভিএমের গোপন বুথে অবস্থান নেয়। ভোটাররা ফিঙ্গার প্রিন্ট দেয়ার পর ব্যালট ইউনিটে নৌকার লোকজন নিজেদের প্রতীকে ভোট দিয়ে দেয়। এভাবে নির্বাচনের নামে জনগণের ট্যাক্সের টাকা খরচ করে সরকার তামাশা করেছে। সবকটি কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়া, ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাধা দেয়া, গোপন বুথে ছাত্রলীগ-যুবলীগের কর্মীরা ভোট প্রদান করেছে। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, যুবদল নেতা খোরশেদ ও রফিকের ওপর হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করেছিলো আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। এছাড়া ভোটের আগের রাত থেকে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে এবং প্রশাসনের পক্ষপাতিত্বে জনগণের ভোটাধিকার হরণের মঞ্চায়ন হয়েছে চট্টগ্রামে।

রিজভী বলেন, আমরা আশংকা করছি চট্টগ্রামের মতো ঢাকার দুই সিটির ভোটেও ভোটের আগে বিএনপি নেতাকর্মী ও সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি-ধমকি, হামলা আর ভোটের দিন ভোটকেন্দ্রে আসতে নিষেধ করা হচ্ছে। ধানের শীষের প্রার্থীর সমর্থক ও ভোটারদের প্রতিনিয়ত নিগৃহীত করা হচ্ছে। চট্টগ্রাম-৮ আসনে উপ-নির্বাচনের মতো সরকারের বিশ্বস্ত ভাঁড় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা ঢাকাতেও নিজের তেলেসমাতি অক্ষুন্ন রাখবেন কি না সেটি নিয়েও জনমনে নানা প্রশ্ন দীর্ঘ হচ্ছে। বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাতের ভোট ডাকাতি উপহার দেয়ার জন্য মুচলেকা দিয়ে শেখ হাসিনার কাছ থেকে দামি বিএমডব্লিউ পেয়েছিলেন সিইসি হুদা।

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে তিনি বলেন, জনগণের প্রাণাধিক প্রিয় বেগম খালেদা জিয়ার প্রাণনাশের উদ্দেশে প্রায় দুই বছর ধরে বিনা অপরাধে বন্দী রাখা হয়েছে। বিনা চিকিৎসায় তাকে পঙ্গু করে ফেলা হয়েছে। ৭৫ বছর বয়স্ক দেশনেত্রীর জীবন প্রতি মূহুর্তে শংকার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সরকারের মদদে তার গুরুতর অসুস্থতা গোপন করা হচ্ছে। তিনি এখন কি অবস্থায় আছেন তা কাওকে জানতে দেয়া হচ্ছে না। গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও গণতন্ত্রের প্রতি অঙ্গীকারাবদ্ধ গণতন্ত্রের প্রতীক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গুরুতর অসুস্থতায় তিনি কি বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে আছেন সেটি নিয়ে দেশবাসী উৎকন্ঠিত। তাঁর সাথে স্বজনদের দেখা সাক্ষাত করতে দেয়া হচ্ছে না। তাঁর শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে সরকারের মন্ত্রী ও পাতি নেতারাও কুৎসিত ‘ডার্ক হিউমার’ করে যাচ্ছেন। পিজি হাসপাতালের মেডিকেল বোর্ড তার স্বাস্থ্য সম্বন্ধে যে প্রতিবেদন দিয়েছে তাতে বলা হয়েছে তার বর্তমান অবস্থায় এডভান্স চিকিৎসা দরকার। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। প্রতিহিংসার পথ পরিহার করে অবিলম্বে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিতে হবে। এছাড়াও গতকাল সন্ধ্যায় বিএনপির সহ-যুব বিষয়ক সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজকে লালবাগ কেল্লার মোড় থেকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও অবিলম্বে তার মুক্তি দাবি করেন রিজভী।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 WeeklyBangladeshNY.Net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com